Floating Facebook Widget

জীবনের লক্ষ্য জিপিএ-৫ হতে পারে না - Deshi News

শনিবার২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০,দেশীনিউজডাচ-বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো ফিজিক্স অলিম্পিয়াডের দুই দিনব্যাপী জাতীয় উৎসব শুরু হয়েছে। শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলে উৎসবের উদ্বোধন করেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। দশম ফিজিক্স অলিম্পিয়াডের আয়োজক বাংলাদেশ ফিজিক্স অলিম্পিয়াড কমিটি। পৃষ্ঠপোষকতায় রয়েছে ডাচ-বাংলা ব্যাংক। প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে সহযোগিতা করছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ। 

আয়োজনের ম্যাগাজিন পার্টনার কিশোর আলো ও বিজ্ঞানচিন্তা। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জাতীয় সংগীতের সঙ্গে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় উৎসবের আনুষ্ঠানিকতা। এরপর বেলুন উড়িয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন অতিথিরা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেন, 'জিপিএ-৫ নিয়ে আমাদের মধ্যে উন্মাদনা আছে। জীবনের একমাত্র লক্ষ্য জিপিএ-৫ হতে পারে না। মা-বাবাদের মধ্যে জিপিএ-৫ নিয়ে যত উন্মাদনা দেখি, তাতে কষ্ট লাগে। জিপিএ-৫-এর চাপে পুরো শিক্ষাব্যবস্থা নিরানন্দ হয়ে যাচ্ছে।' কথাসাহিত্যিক ও ফিজিক্স অলিম্পিয়াড কমিটির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, 'আজকের ছেলেমেয়েদের জীবন অনেক কষ্টের। দিনভর লেখাপড়া করেও গোল্ডেন-৫ না পেলে তারা জীবন বৃথা ভাবে। এটা একদম বাজে কথা। 

জিপিএ এমনিতেই আসবে। জ্ঞানের জন্য পড়তে হবে।' ডাচ-বাংলা ব্যাংকের বোর্ড অব চেয়ারম্যান সায়েম আহমেদ বলেন, 'সাত বছর ধরে ফিজিক্স অলিম্পিয়াডের সঙ্গে আছে ডাচ-বাংলা ব্যাংক। আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় গিয়ে কোনো পুরস্কার পেলাম কি পেলাম না, তাতে কিছু যায় আসে না। শিক্ষার্থীদের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ বাড়ানোই বড় কথা। শিক্ষার্থীরা কিছু শিখতে পারলেই এই অলিম্পিয়াডের সাফল্য।' অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক আবদুস সামাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের ডিন তোফায়েল আহমেদ চৌধুরী, প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হক, ফিজিক্স অলিম্পিয়াড জাতীয় উৎসবের আহ্বায়ক অধ্যাপক এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম, ফিজিক্স অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি খোরশেদ আহমেদ। 

১৫টি আঞ্চলিক উৎসবের বিজয়ী সহস্রাধিক শিক্ষার্থী দুই দিনের এই উৎসবে অংশ নিচ্ছে। দুপুরে বিরতির পরে তিন ঘণ্টার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আজ ফল ঘোষণা করা হবে। এদিকে সাইন্সল্যাবে ঢাকা ও সিটি কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় আহত ঢাকা কলেজের দুই শিক্ষার্থীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দেখতে যান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। শুক্রবার দুপুর দেড়টায় শিক্ষামন্ত্রী তাদের দেখতে হাসপাতালে যান। এরপর আহত শিক্ষার্থীদের চিকিৎসার খোঁজখবর নেন ও তাদের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেন। 

যে দুই শিক্ষার্থীকে দেখতে শিক্ষামন্ত্রী হাসপাতালে গেছেন তারা হলেন- হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী তামিম আহমেদ সোয়াত ও ১০২ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি সাফওয়ান সাফি। হাসপাতাল থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময় উপস্থিত সাংবাদিকদের শিক্ষামন্ত্রী বলেন, দুটি কলেজের শিক্ষার্থীদের নিজেদের মধ্যে কোনো কারণে ধস্তাধস্তি, মারামারি হয়। এরমধ্যে একে অন্যকে এইভাবে ছুরিকাঘাত করবে- এটা কখনো কারো কাম্য নয়। এগুলো প্রতিরোধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে আরও শক্ত ভূমিকা নিতে হবে। তিনি আরও বলেন, এখন তো মারামারি করার সময় না। বিশ্ব যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে আমাদের সেভাবে এগিয়ে যেতে হবে। নিজেদের তৈরি করতে হবে। মন্ত্রী বলেন, আমি উভয় প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষকে বলব, উভয় ক্যাম্পাস যেন শান্ত থাকে। আমরা যেন আর এই বিষয়গুলো নিয়ে কোনো ধরনের সহিংসতা না দেখি।

দেশীনিউজ/কাউছার আহমেদ

শিক্ষাঙ্গন