Floating Facebook Widget

আন্দোলন স্থগিত, প্রধানমন্ত্রীকে 'মাদার অব এডুকেশন’ উপাধি - Deshi News

১২ এপ্রিল ২০১৮,বৃহস্পতিবার,দেশীনিউজকোটা পদ্ধতি বাতিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়ে চলমান আন্দোলন প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়া পর্যন্ত স্থগিত ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ। এছাড়া তারা ওই আন্দোলনে আটকতৃদের নি:র্শত মুক্তির দাবিও জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) রাজু ভাস্কর্যের সামনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন এ ঘোষণা দেন।

এসময় তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য সম্মানের সাথে মেনে নিয়ে চলমান আন্দোলন স্থগিত করা হলো। আপনার (প্রধানমন্ত্রী) ঘোষণাকে আমরা স্বাগত জানাই। ছাত্রসমাজের কথা চিন্তা করে আপনার গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য আমাদের সকল ছাত্রসমাজের মন জয় করে নিয়েছেন। সকল ছাত্রসমাজের পক্ষ থেকে আপনাকে ধন্যবাদ ও সাধুবাদ জানাই।’

এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘মাদার অব এডুকেশন’ উপাধিতেও ভূষিত করে তাকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানানোর কথা জানান আন্দোলনকারীরা। এছাড়াও ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতেও শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের কথাও জানান তারা।

প্রেস ব্রিফিং শেষে প্রধানমন্ত্রীর কোটা বাতিলের ঘোষণা সাদরে গ্রহণ করে রাজু ভাস্কর্যের সামনে থেকেই আন্দোলনকারীরা আনন্দ মিছিল শুরু করেন।

কয়েকদিন ধরে কোটা সংস্কারের দাবিতে চলমান আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার সংসদে কোটা বাতিলের ঘোষণা দেন।

এ দিন বিকেলে জাতীয় সংসদের প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে কোটা বিরোধী আন্দোলনের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কোটা থাকলেই আন্দোলন হবে, আজ এরা-কাল আরেকজন আসবে। এর থেকে আমি মনে করি কোটা পদ্ধতিই বাতিল করাটাই ভালো হবে।’

এ সময় ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও প্রতিবন্ধীদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা রেখে সরকারি চাকরিতে কোটা না রাখার কথা জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, নারীসহ তরুণ শিক্ষার্থী এবং জেলা পর্যায়েও শিক্ষার্থীরা যেহেতু কোটা চায় না, তাই কোটা পদ্ধতি রাখার দরকার নেই। সেই সঙ্গে, আন্দোলনকারীদের শ্রেণিকক্ষে ফিরে যাওয়ারও আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর এই ভাষণ শেষে আন্দোলন স্থগিত করে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

দেশীনিউজ/দুলাল হোসেন

শিক্ষাঙ্গন