Floating Facebook Widget

ইজতেমায় জুমা পড়লেন লাখ লাখ মুসল্লি - Deshi News

১২ জানুয়ারি ২০১৮,শুক্রবার,দেশীনিউজটঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে শুক্রবার বাদ ফজর থেকে শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব।

দুপুরে ইজতেমা ময়দানে অনুষ্ঠিত হয়েছে জুমার নামাজ। নামাজে ইজতেমায় যোগদানকারী দেশি-বিদেশি মুসল্লিদের সঙ্গে ঢাকা, গাজীপুরসহ আশপাশের জেলার কয়েক লাখ মুসুল্লি অংশ নেন।

ইজতেমা ময়দানে দুপুর দেড়টার দিকে শুরু হয় জুমার নামাজ। এতে ইমামতি করেন কাকরাইল মসজিদের ইমাম হাফেজ মোহাম্মদ জোবায়ের।

জুমার নামাজে অংশ নিতে সকাল থেকে শীত উপেক্ষা করে ঢাকা-গাজীপুরসহ আশপাশের এলাকার মুসল্লিরা ইজতেমাস্থলে হাজির হন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মুসল্লিদের ঢল বাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে মুসল্লিদের লাইন ইজতেমা মাঠ উপচে ময়দানের পাশের কামারপাড়া রোড, বাটা রোড ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ছড়িয়ে পড়ে। মাঠে স্থান না পেয়ে মুসল্লিরা সড়ক-মহাসড়কে চটের বস্তা, খবরের কাগজ, পলিথিন বিছিয়ে জুমার নামাজে শরিক হয়েছেন।

জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হক, ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি আবু কালাম সিদ্দিক, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মো. হুমায়ুন কবীর, গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ ইজতেমাস্থলে জুমার নামাজে অংশ নেন।

শুধু জুমার নামাজে অংশ নিতে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার  বরফা এলাকা থেকে আসেন মো. মুকুল মিয়া। তিনি জানান, তিনিসহ এলাকার পাঁচজন সকাল ৮টার দিকে রওনা হয়ে বেলা পৌনে ১১টার দিকে মাঠে আসেন। ইজতেমা মাঠের লাখো ধর্মপ্রাণ মুসল্লির সঙ্গে জামাতে নামাজ করতে এসেছেন।

 ময়মনসিংহের গৌরীপুর থানার ভাঙনাবাড়ি এলাকার মো. শামসুল হক সিকিউরিটি গার্ড হিসেবে চাকরি করেন ঢাকার উত্তরার জসিম উদ্দিন রোড এলাকার ইসলামী ব্যাংকে। জুমার নামাজ আদায় করতে দুপুর সোয়া ১২টার দিকে রওনা দেন উত্তরা থেকে। ১টার দিকে মাঠে পৌঁছে অন্যান্য মুসল্লিদের সঙ্গে টঙ্গীর বাটা রোড এলাকায় নামাজ আদায় করেন।

এর আগে বাদ ফজর জর্ডানের মাওলানা শেখ ওমর খতিবের বয়ানের মধ্য দিয়ে বিশ্ব ইজতেমার মূল পর্ব শুরু হয়। আখেরি মোনাজাতের আগ পর্যন্ত তাবলিগ জামাতের শীর্ষস্থানীয় মুরুব্বিরা আখলাক. ঈমান ও আমলের ওপর বয়ান পেশ করবেন।

প্রথম দিনে যারা বয়ান করবেন
বাদ জুমা বয়ান করবেন বাংলাদেশের মাওলানা মোহাম্মদ হোসেন, বাদ আসর বয়ান করবেন বাংলাদেশের মাওলানা আব্দুল বার ও বাদ মাগরিব বয়ান করবেন বাংলাদেশের মাওলান মোহাম্মদ রবিউর হক।

আগামী ১৪ জানুয়ারি প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। চার দিন পর ১৯ জানুয়ারি শুরু হবে দ্বিতীয় পর্ব। একইভাবে ২১ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে দ্বিতীয় পর্ব তথা এবারের বিশ্ব ইজতেমা।

দেশীনিউজ/শহিদ উল্লাহ বাবলু

ইসলাম