Floating Facebook Widget

আমাদের দেশে শিশুদের উপর নির্যাতনের স্টিমরোলার দিন দিন বেড়েই চলছে - Deshi News

দেশিনিউজবিডি.কম,

৬ আগস্ট ২০১৫, বৃহস্পতি,বিল্লাল হোসেন:ঢাকাঃ সাম্প্রতিক সময়ে শিশু কিশোর নিধনের ভয়াবহ চিত্র  আমাদের কে ক্রমাগত মর্মাহত করেছে বাংলাদেশের শিশুরা সবচে বেশি অনিরাপদ হয়ে উঠছে একের পর এক ঘটছে অমানবিক ঘটনা উম্মোচন হচ্ছে সমাজের বিকৃত চেহারা বেরিয়ে পড়ছে মানবিকতার অধপতন এবং পচনের ভয়াবহ চিত্র, স্তম্ভিত মানুষের বিবেক ক্রমাগত ছড়িয়ে পড়ছে অস্থিরতা অসহিষ্ণুতা । অনেকে করছে আর্তচিৎকার কোন সমাজে বসবাস করছি আমরা?? আমি নিজের দিকে তাকিয়ে বুঝতে পারছিনা আমরা কি মানুষ ??আমরা কাদের হত্যা করছি? হিংস পশুর ধেকেও আরও জগন্য কারণ সুন্দর বনে এমন ঘটনা আজ পযর্ন্ত চোখে পড়েনি যে কয়েকটি বাঘ মিলে একটি বাঘের বাচ্ছাকে হত্যা করেছে? কিন্ত মানুয়ের বেলাই প্রতিদিন ঘটছে  টিভির পর্দায় পত্র পত্রিকার পৃষ্টা খুললেই দেখতে পাই শিশু নির্যাতন সাম্প্রতিক সময়ে এর মাত্রা তীব্র আকারে বৃদ্ধি পাচ্ছে, ধর্ষন  এর কথা নাই বললাম ,কারন  ধর্ষন যৌন হয়রানি এটা নাকি ছেলেদের দুষ্টামী, কে বলেছেন সভাই ভাল জানেন ধর্ষন এর খবর বিহীন পত্রিকা পাওয়া যায় না

গত ৮ই জুলাই সিলেটে ১৪ বছরের শিশু রাজন কে কিভাবে হত্যা করেছে যার ভিডি ফুটেজ দেখে চোখেঁর পানি ধরে রাখা যায় না যার শেষ চাওয়া ছিল একফোটা পানি তাও দেওয়া হয় নাই খুলনায় অভাবের তাড়নায় স্কলে পড়া ছেড়ে গ্যরেজে কাজ নিয়েছিল শিশু রাকিব(১২) কিন্ত কাজ করে নিয়মিত পয়সা পেতো না বলে এক গ্যরেজ ছেড়ে অন্য গ্যরেজে কাজ নেয় এটাই ছিল তার অপরাধ!শাস্তি দেওয়া হলো কমপ্রেসর মেশিনের নল ঢুকিয়ে দেয় তার মলদ্বার দিয়ে পরবর্তীতে কি হয়েছে আশা করি তা আর বলার প্রয়োজন নেই সাভারে সাত তালা থেকে নিচে পেলে নিজের পুত্রসন্তান কে হত্যা করেছে বাবা, রাজপথে বাক্সবর্তী নির্যাতিত শিশুর লাশ,মায়ের হাতে বিষপানে মৃত্যবরণ করে শিশু, ঢাকার খিলক্ষেতে কবুতর চুরির অপরাধে একটি শিশুকে নির্মম নির্যাতন করে হাত-পা বেধে পানিতে পেলে হত্যা করে গত ১৩ই জুলাই ফেসবুকে ছবি আপলোড করা হয় বাসা বাড়ীতে কাজের মেয়েদের শারিরীক নির্যাতন এমন আরো নানা ভাবে হত্যার শিকার শিশুরা

আমাদের মানবিক চেতনাকে নানা ভাবে ধিক্কার দিয়েছে আমরা এসন ভয়াবহ নৃশংসতা দেখে মুখ বুজে আছি,এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের চোখের সামনে মূল্যবোধের অবক্ষয় চিত্র কে স্পষ্ট করছি তাহলে কি বিচার হীনতার সংস্কৃতি আজবের এই মূল্যবোধের বিপর্যয়ের কানণ? কিছু মানুষ ক্রমাগত তলিয়ে যাচ্ছে বিকৃতি আর বর্ব্রতর নিষ্টুর গর্তে দিন দিন শিশু নির্যাতন হওয়ার একটাই কারণ শিশু হত্যা যথাযথ বিচার না হওয়া যখন একটি হত্যার ঘটনা শুনা যায় আমাদের মন্ত্রী মহদয় নিজের দোষ এড়ানোর জন্য একটি তদন্ত কমেটি গঠন করে পরিবারকে সান্তনা বানী দিয়ে চলে আসেন তার কয়েকদিন পর সব সমাপ্ত হয়ে যায় তদন্ত তদন্তের জাগায় পরে থাকে যেখানে একটি হত্যার ভিডিও ফুটেজ থাকে হত্যাকারী কে তা স্পষ্ট সেখানে। কে হত্যা করল তা আর তদন্তের প্রয়োজন হয় না, আমি মনে করি এই পযর্ন্ত যদি বাংলার মাটিতে একটি হত্যার বিচার হতো তাহলে মানুষ এত সাহশ পেতো না কে এর বিচার করবে সরকার ব্যস্ত বিরোধীদল এবং জামাত শিবির নিয়ে এসকল হত্যাকান্ডের পর মানবাধিকার থাকে নিবর, আর রাজনীতিবিদেরা শুরু করে লাশ নিয়ে রাজনীতি বক্তব্য ,আমি ধিক্কার জানাই এসকল নোংড়া রাজনীতিদিদের আমি একা বলে কি হবে? শুধু নিজের মনকে সান্তনা দিতে পারবো

মানব প্রজাতির বাগানের শিশুরা কুসুমকলি যারা মনে করে মানব ভবিষ্যতের আগামী দিন বতর্মান শিশুরা আমাদের উচিৎ এসব শিশু নামক কুসুমকলি ফুটে উটতে দেওয়া এই মুর্হূতে বাংলাদেশের অসাধারণ শক্তির  বাইরে ছিটকে যাক, দেশ জুড়ে শিশু নিধনের নানা প্রক্রিয়ায় নিমজ্জিত হোক আমরা এটা চাই না সময় এসেছে দেশের সবর্স্তরের জনগনের উচ্চসুরে বলা এবং করা, শিশুদের এই নির্যাতনের প্রতিরোধে আমি আমার হাতটি বাড়িয়ে দিলাম আমরা সবাই প্রতিজ্ঞা করি স্বাভাবিক মৃত্যুর বাহিরে আর কোনো শিশুর মৃত্যু যেন না হয় 

সম্পাদকীয়